মহুয়ার মৃত্যুর পর আনন্দলোকের সম্পাদকীয় পোস্ট

 অভিনেত্রী মহুয়া রায়চৌধুরীর মৃত্যুর পর বাংলার অন্যতম শীর্ষস্থানীয় চলচ্চিত্র ম্যাগাজিনের সম্পাদকীয় পোস্ট    

From Film Kapalkundala



অভিনেত্রী মহুয়া রায়চৌধুরীর পারলৌকিক কাজের বিবরণ

 একটি দৈনিক বাংলা নিউজ পেপার (আনন্দবাজার পত্রিকা) থেকে আমরা মহুয়ার পারলৌকিক কাজের বিবরণ আমরা পেয়েছি








মহুয়া রায়চৌধুরীকে স্মরণ করলেন পরিচালক বীরেশ চট্টোপাধ্যায়

 






পরিচালক বীরেশ চট্টোপাধ্যায়ের এখনও মনে আছে মহুয়ার সঙ্গে তাঁর বাড়িতে শেষ দেখা। সেই মর্মান্তিক দিনে, সন্ধ্যায় বীরেশ মহুয়ার সাথে তার বাড়িতে দেখা করে। এমনকি পরের দিনের শুটিং নিয়েও কথা বলেছেন তারা। বীরেশ চট্টোপাধ্যায়ের বক্তব্য নীচে দেওয়া হল।



অভিনেত্রী মহুয়া রায়চৌধুরীর শেষ শট

 

শেষ ছবি বীরেশ চট্টোপাধ্যায় পরিচালিতআশীর্বাদ চিত্রগ্রাহক শক্তি বন্দ্যোপাধ্যায় ক্যামেরা বন্দি করলেন মহুয়ার শেষ শট।



আকুল হয়ে কাঁদতে কাঁদতে ফোনে বলছে, ‘‘আমি ভাল নেই, আমি ভাল নেই। তুমি এসে আমাকে নিয়ে যাও। সে কি শুধু অভিনয় ছিল?’’

মহুয়া রায়চৌধুরীর স্মরণে যা বললেন সন্ধ্যা রায়

 




ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে মহুয়ার প্রথম মেন্টর ছিলেন সন্ধ্যা রায়। শ্রীমান পৃথ্বীরাজ ছিলেন মহুয়ার প্রথম ছবি এবং সন্ধ্যা রায় মহুয়াকে ছাঁচে ফেলার দায়িত্বে ছিলেন, মহুয়া তখন নিছক বাচ্চা। মহুয়ার স্বভাব ছিল খুবই আকর্ষণীয় এবং সকলেরই তাকে ভালবাসত। স্বাভাবিকভাবেই মহুয়াকে সন্ধ্যা রায় ভালোবাসতেন এবং মহুয়া  - সন্ধ্যা রায়ের সম্পর্ক মহুয়ার মৃত্যুর আগ পর্যন্ত অটুট ছিল।

মহুয়া সম্পর্কে যা বললেন সন্ধ্যা রায়




রঞ্জিত মল্লিকের চোখে মহুয়া রায়চৌধুরী

 

অভিমান

মহুয়া রঞ্জিত মল্লিকের বিপরীতে অনেক ছবিতে অভিনয় করেছেন যেমন অভিমান, লাল গোলাপ,কপালকুণ্ডলা, শঠে শাঠ্যং। মহুয়াকে নিয়ে রঞ্জিত মল্লিকের অনেক স্মৃতি রয়েছে এবং অভিমান চলচ্চিত্রের শুটিং সম্পর্কিত এমন একটি স্মৃতি:

"এখনও মনে পড়ে সে দিনটার কথা। মার খেতে খেতে মাটিতে পড়ে গেছে। তবু মুখ থেকে একটা আওয়াজ বেরোয়নি সুজিত গুহ- ছবিঅভিমান’-এর শ্যুটিং চলছে। আর আমি স্বামী-স্ত্রীর ভূমিকায়। আমি খোঁড়া। অসহায়। খানিকটা ইনফিরিয়রিটি কমপ্লেক্স থেকেই দুর্ব্যবহার করি।

একটা দৃশ্যে হাতের ক্রাচ দিয়ে মারতে মারতে ওকে মাটিতে ফেলে দিয়ে আমার ডায়লগ ছিল। শেষ হবার পর সবাই বুঝতে পারল ভয়ংকর লেগেছে ওর। আমি উত্তেজিত হয়ে বেশ জোরেই আঘাত করে ফেলেছি। শক্ত শট। তাই যাতে রিপিট না হয় সেই জন্য টুঁ শব্দটি করেনি। কী ভীষণ একাগ্রতা!

পর পর বেশ কয়েকটা ছবিতে কাজ করেছি আমি আর মহুয়া।লাল গোলাপ’, ‘অভিমান’, ‘কপালকুণ্ডলা’, ‘শত্রু’, ‘শঠে শাঠ্যং’....। 

দুযুগের বেশি কেটে গেছে তবু অরণ্যবালা কপালকুণ্ডলার সরল চাউনি, তার এক্সপ্রেশনআজও জ্বলজ্বলে আমার কাছে।

আরেকটি দৃশ্যর কথাও কোনও দিন ভোলার নয়।

শঠে শাঠ্যংছবিতে বাবা সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়। মুখোমুখি মহুয়া। দরিদ্র বেকার প্রেমিককে বলে দিতে বলছে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব ধনীকন্যাকে বিয়ে করবার মতো রোজগার করে তবে যেন আসে। উত্তরে মহুয়া শুধু একদৃষ্টে তাকিয়েছিল বাবার দিকে!

অস্বীকার, অভিযোগ, ব্যথা এবং প্রতিবাদের ভাষা সব মিলেমিশে সে কী দৃষ্টি। প্রতিভা না থাকলে, চারপাশকে তীক্ষ্ণ ভাবে দেখার ক্ষমতা না থাকলে অমন জিনিস অভিনয়ে আনা সম্ভব নয়।"

প্রতিবেদক গৌতম ভট্টাচার্যের সাথে একটি সাক্ষাত্কারে রঞ্জিত মল্লিক মহুয়া সম্পর্কে তার একটি দুঃখজনক স্মৃতি প্রকাশ করেছিলেন। রঞ্জিত মল্লিক বলেন যে তিনি সাধারণত শুটিং থেকে রবিবার ছুটি নিতেন। কিন্তু মহুয়া রঞ্জিত মল্লিককে রবিবার শুটিংয়ের জন্য অনুরোধ করতেন। এটি বেশ কয়েক সপ্তাহ ধরে চলতে থাকে এবং অবশেষে রঞ্জিত মল্লিক পরিচালকের কাছে তার অসন্তোষ প্রকাশ করেন। পরিচালক রঞ্জিত মল্লিকের কাছে বিষয়টি স্পষ্ট করেন। রঞ্জিত মল্লিক জানতে পেরেছিলেন যে ঘরোয়া ঝামেলার কারণে, মহুয়া প্রতি রবিবার তার বাড়ির বাইরে থাকার চেষ্টা করে।

মহুয়া রায়চৌধুরীকে নিয়ে তাপস পালের শেষ বক্তব্য

নিজের মৃত্যুর 2 বছর আগে, তাপস পাল হঠাৎ একটি সংবাদপত্রের সাথে যোগাযোগ করেন এবং তার প্রিয় অভিনেত্রী মহুয়া রায়চৌধুরী সম্পর্কে কিছু বলতে চান। তার বক্তব্য থেকে স্পষ্ট বোঝা যায় যে দুজনেই একে অপরের সাথে আবেগগতভাবে সংযুক্ত ছিলেন।


মহুয়া আর তাপস দুজনেই আর নেই। তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক ছিল এবং তা ভেঙে গেছে কিনা তা অনুসন্ধান করা আমাদের উদ্দেশ্য নয়। তারা একে অপরকে পছন্দ করেছিল যা যেকোনো কাজের ক্ষেত্রে খুবই স্বাভাবিক।
মহুয়ার মৃত্যুর এত বছর পর এবং তার নিজের মৃত্যুর ঠিক 2 বছর আগে তাপস পাল অনুভব করলেন যে তাঁর সেরা অভিনেত্রীর প্রতি তাঁর অনুভূতি স্বীকার করতেই হবে।









Source: Sangbad Pratidin

কমল বন্দোপাধ্যায় মহুয়া রায়চৌধুরীর 37 তম মৃত্যুবার্ষিকীতে তাঁর স্মৃতি থেকে স্মরণ করেছেন

  দমদমের বাসিন্দা কমল বন্দ্যোপাধ্যায় শিল্পীকে একদম মেয়েবেলা থেকে দেখেছেন তাঁর দাদার বন্ধু হিসেবে। গত বছরও স্মৃতিচারণ করেছিলেন আজকের দিনে তাঁ...